আশুলিয়ায় মটরসাইকেল গাড়ি চুরি, ছিনতাইসহ বাড়ছে ক্রাইম

ক্রাইম রিপোর্ট

স্টাফ রিপোর্টার ঃ সারাদেশে মটরসাইকেল গাড়ি চুরি, ছিনতাই, ডাকাতি ও স্বর্ণালংকার লুটের ঘটনাসহ বাড়ছে বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড (ক্রাইম)। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে এক দুইজন আটক হলেও আদালত থেকে জামিনে এসে আবারও সেই অপরাধ করে থাকে অপরাধীরা।
শুক্রবার (৫ নভেম্বর ২০২১ইং) সকাল ৮টার দিকে ঢাকার আশুলিয়ার বাইপাইল মাছের বাজারের পূর্ব পাশে বাস কাউন্টারের সামনের রাস্তায় তালাবদ্ধ অবস্থায় একটি বাজাজ কালো ও নীল রংয়ের ১০০ সিসি মটরসাইকেল চুরি হয়েছে। যাহার রেজিঃ নং ঢাকা মেট্রো-হ-২৬৯৫৫৮। এ বিষয়ে ওই মোটরসাইকেলের মালিক মোঃ বাবুল রানা বলেন, আমি বাজারে মাছ কিনতে যাওয়ার ২০মিনিটের মধ্যে আমার গাড়িটি চুরি হয়েছে। আমি এ বিষয়ে আশুলিয়া থানায় মামলা করার জন্য একটি অভিযোগ দায়ের করেছি। তদন্তকারী অফিসার আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) কায়সার হামিদের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। গত বছর আশুলিয়া থানায় নতুন অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামরুজ্জামান আসার পর থানার ভেতর থেকে শিল্পা ল পুলিশের এক (এএসআই) মটরসাইকেল রেখে সরকারি কাজে থানার ভেতরে যাওয়ার ১৫ মিনিটের মধ্যে গাড়িটি চুরি হয়। এরকম গাড়ি চুরিসহ বাইপাইল ও জামগড়া এলাকা থেকে অনেক গাড়ি চুরি ও ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে।
জানা গেছে, এর আগে গত বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর ২০২১ইং) ভোর রাতে একটি বাড়িতে লুটের ঘটনা ঘটেছে। ঢাকা জেলার আশুলিয়া থানাধীন ধলপুর এলাকার মোঃ রশিদ শিকদারের জমি ভাড়া নিয়ে গরীব অসহায় মোঃ শের আলী নামের এক ব্যক্তি টিনসেড ঘর তৈরি করে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছিলেন। ভুক্তভোগী পরিবার জানায়, পুলিশ পরিচয় দিয়ে তাদের বাড়িতে ৫/৬ জনের এক দল ডাকাত ঢুকে অস্ত্রের মুখে তাদেরকে জিম্মি করে হাত-পা বেঁধে রেখে ৩টি গরু ও স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে পালিয়ে যায় একটি ডাকাত দল।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ভুক্তভোগী শের আলী বলেন, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে পুলিশ পরিচয়ে ৫/৬ জনের একদল ডাকাত বাড়িতে ঢোকে। এরপর ওই ডাকাতরা আমাকে ও আমার স্ত্রীকে রশি দিয়ে বেঁধে ফেলে। আমরা চিৎকার করতে গেলে ডাকাতরা গুলি করে আমাদের মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এসময় তারা আমার স্ত্রীর গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন, কানে থাকা স্বর্ণের দুল ও ৩টি গরু লুট করে নিয়ে যায়। তিনি আরও বলেন, আমি গরীব মানুষ তাই জমি কিনে বাড়ি করতে পারিনি। স্থানীয় রশিদ শিকদারের জমি ভাড়া নিয়ে কোনরকম একটা ঘর তৈরি করে পরিবার নিয়ে অনেক কষ্টে বসবাস করছি। তিনি প্রতি মাসে ২হাজার টাকা ওই জমির ভাড়া দেন বলে গণমাধ্যমকে জানান। তিনি আরও বলেন, গরু পালন করে আমি আমার পরিবার চালাতাম। আমার গরু ৩টি ও বৌয়ের স্বর্ণালংকার ডাকাতি হওয়ায় আমি পরিবার নিয়ে পথে বসে গেছি। তিনি আরও বলেন, আমার গরুগুলোই ছিলো আয়ের একমাত্র সম্বল, আমার মরণ ছাড়া উপায় নেই।
আশুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ শাহাব উদ্দিন মাদবরের কাছে এ বিষয়ে জানতে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে বর্তমান আশুলিয়া ইউপি’র ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার মোহাম্মদ আলী সরকারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ওই ভুক্তভোগী পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন। ১নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার আব্দুল লতিফ বলেন, ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। ভোক্তভোগী পরিবার অন্যের জায়গা ভাড়া নিয়ে গরু পালন ও কাজকর্ম করে পরিবার নিয়ে বসবাস করেন। তিনি আরও বলেন, আমি যতটুকু জানি যে, এই গরু ছিলো তাদের পরিবারের একমাত্র সম্বল। তিনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষকারী বাহিনীর কাছে এই ডাকাতির ঘটনার সঠিকভাবে তদন্ত করার জন্য অনুরোধ করেন এবং দ্রæত যেন এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হয় সেজন্যও অনুরোধ করেছেন। স্থানীয় মনির হোসেন (গ্যাস মনির) বলেন, ভুক্তভোগী পরিবার গরীব অসহায় মানুষ এখন কোথায় যাবে? এলাকার জনপ্রতিনিধিসহ আমাদের উচিৎ তাদেরকে সাহায্য সহযোগিতা করা। তিনি আরও বলেন, থানায় মামলা দায়ের করার মতো শক্তিও তাদের নেই। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী উক্ত ব্যাপারে তদন্ত করে থানায় মামলা দায়েরের পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ করেছেন তিনি।
আশুলিয়া থানার তদন্তকারী অফিসার (এ এসআই) আল-মামুন বাংলার চোখ’কে বলেন, ঘটনাস্থল ধলপুর যে বাড়িতে লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে সেই বাড়িটি পরিদর্শন করেছি, তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। স্থানীয়রা জানায়, এর আগে উক্ত আশুলিয়ার নয়ারহাট এলাকায় ১৭টি স্বর্ণের দোকানসহ ১৯টি দোকানে এক রাতে গণডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। অনেকেই ধারণা করছেন যে, উক্ত লুটপাটের ঘটনাস্থল ওই বাড়ির জায়গা থেকে তাদেরকে বেড় করে দখলমুক্ত করার জন্যও এ ঘটনা ঘটতে পারে। অনেকেই বলেন, (আশুলিয়া ক্রাইম জোন এলাকা) ও গাজীপুরের কাশিমপুর প্রায়ই বিভিন্ন এলাকায় চুরি, ছিনতাই, চাঁদাবাজি ও ডাকাতি এবং হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। সব ঘটনার মামলা হয় না বলে অনেকেই জানান।
উক্ত বিষয়ে র‌্যাব জানায়, চাঁদাবাজ, মাদক সন্ত্রাস ও ছিনতাইকারী, ডাকাতসহ অপরাধীদের আটক করাসহ বিভিন্ন অপরাধীদের গ্রেফতার করতে র‌্যাব কাজ করছে। উক্ত বিষয়ে থানায় মামলা দায়েরের পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও র‌্যাব জানায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *