ছেলে বউয়ের বিরুদ্ধে শাশুড়ি মাকে মারধর করে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ

সারাদেশ

হেলাল শেখঃ ঢাকার আশুলিয়ার ধামসোনা ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের ভাদাইল মধ্যপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের পাশে এক ছেলে বউয়ের বিরুদ্ধে বৃদ্ধ মা বাবাকে মারধর করে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ। মা মোছাঃ জায়েদা খাতুন (৭০) বাদী হয়ে প্রথমে আশুলিয়া
থানায় অভিযোগ করেন, এরপর ঢাকা কোর্টে ছেলের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।
সোমবার (২৪ জানুয়ারি ২০২২ইং) জায়েদা খাতুন গণমাধ্যমকে বলেন, আমার স্বামী-হাজী মোঃ আজগর আলী হজে যাওয়ার আগে ছেলেদেরকে বাড়ির জায়গা জমি ভাগ বন্টন করে দিয়েছেন। আমার স্বামী অসুস্থ হওয়ার পর ছেলেরা ওষুধ কিনে দেয়নি, ভাত কাপড়ও
দেয় না। এলাকার মেম্বারসহ অনেকেই এর বিচার করতে এসে ব্যর্থ হয়েছেন। তিনি বলেন, আমার ছোট ছেলে বৌ ও তার শিশু সন্তানসহ আমরা এখন নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি। আশুলিয়া থানায় উক্ত বিষয়ে গত ২২/০১/২০২২ইং একটি অভিযোগ করা হয়েছে, তিনি আরও বলেন, আমি শান্তি চাই। আমার ছেলে মেয়ে আমার আপনজন। বৃদ্ধ বয়সে যদি মা বাবাকে সন্তানের হাতে মারধরের শিকার হতে হয় তার চেয়ে মৃত্যুই ভালো।
উক্ত অভিযোগে আশুলিয়ার ভুক্তভোগী জায়েদা খাতুন (৭০) বলেন, আমার স্বামী-হাজী মোঃ আজগর আলী, মাতা মৃত জামিনা খাতুন, সাং-ভাদাইল মধ্যপাড়া, পোঃ-ধামসোনা, থানা আশুলিয়া, জেলা ঢাকা। সঙ্গীয় আমার ছোট ছেলের বউ আফরোজা ইয়াসমিন (২৬), ও মোঃ আনোয়ার হোসেনসহ থানায় হাজির হইয়া বিবাদী ১। মমতাজ বেগম (৪৫), স্বামী স্বামী মোঃ জয়নাল
আবেদীন, ২। জিসান (২০), ৩। জয়া আক্তার (২৫), উভয় পিতা মোঃ জয়নাল আবেদীন, সর্বসাং ভাদাইল মধ্যপাড়া, থানা আশুলিয়া, জেলা ঢাকাদের বিরুদ্ধে এই মর্মে অভিযোগ দায়ের করিতেছি যে, ১নং বিবাদী আমার বড় ছেলের বউ, ২ ও ৩ নং বিবাদী আমার নাতী নাতিন। আমার বড় ছেলে জয়নাল আবেদীন আমাদের কোনো খাওয়া পরা, খরচ দেয় না। আমাদের খরচা দিতে বলিলে আমার আমার ছেলেসহ উক্ত বিবাদীরা আমার ও আমার স্বামীকে মারধর করিতে আসে এবং প্রায় সময় মারধর করে। উক্ত বিষয়ে আমি আমার ছেলে জয়নাল আবেদীনএর বিরুদ্ধে আদালতে পিটিশন মামলা দায়ের করি। গত ১৮/০১/২০২২ইং তারিখে উক্ত মামলার হাজিরার দিন ছিলো।
বিচারক কাঠগড়ায় আমার কাছে আমার ছেলেকে মাপ চাইতে বলেন, আমার ছেলে মাফ না চাওয়ায় বিচারক আমার ছেলেকে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। তারপর হইতে উল্লেখিত বিবাদীগন বিভিন্ন সময় আমারসহ আমার স্বামীর উপর বিভিন্ন জুলুম অত্যাচার করিয়া আসিয়াছে। অদ্য ২২/০১/২০২২ইং তারিখ সন্ধ্যা ৭টার দিকে ২নং বিবাদী আমাকে দেখে অকথ্য ভাষায় বকাবাজি করে।
আমি প্রতিবাদ করায়, উক্ত বিবাদী আমার মাথার চুল ধরিয়া টানা হেচড়া করে এবং গলা টিপে ধরিয়া শ্বাসরোধ করিয়া হত্যার চেষ্টা করে।
এলাকাবাসী জানায় এর আগে গত (১৫ এপ্রিল ২০২০ ইং) আজগর আলী অসুস্থ্য হয়ে পড়েন, তার ছেলেরা কেউ তাকে ওষুধ কিনে দেয়না, ভাত কাপড়ও দেয় না তারা, এসব কথাবার্তা তুললেই আমাদেরকে মারধর করে বড় ছেলে জয়নাল আবেদীন। এ ব্যাপারে ছোট ছেলে মোঃ আনোয়ার হোসেন কিছু বললে তাকেও বিভিন্নভাবে হুমকি দেয়। এ বিষয়ে জায়েদা খাতুনের ছোট ছেলে মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেন, আমার বাবা মায়ের ছোট ছেলে আমি আর ভাই বোনদের মধ্যে ছোট হলেও বড়রা আমাকে অনেক দুঃখ কষ্ট দিয়েছেন, যা আমি ভাষায় বুঝাতে পারবো না, বাবা সবাইকে ৭ শতক করে বাড়ির জমি লিখে দিয়েছেন কিন্তু আমার জমির উপর বড় ভাই জয়নাল ঠেলাঠেলি করে এখন মনে হয় ৫-৬ শতক জমি টিকতে পারে আমার । আমার বড় ভাইদের আদর ভালোবাসা না পেয়ে শুধু আঘাত পেয়েছি আমি। তিনি আরও বলেন, আমার বড় ভাই জয়নাল ও মহসিন ভাই আমাকে মেরে ফেলবে বলে বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিয়েছেন। এ ব্যাপারে আমি আশুলিয়া থানায় জিডি করেছি, জিডি নং ২৭১১, তারিখঃ ৩১/১২/২০১৯ইং। তিনি আরও বলেন, আমার বাবা মা, দুইজনই খুব ভালো মানুষ, তারা বেঁচে থাকা
অবস্থায় ছেলে মেয়েদেরকে সঠিকভাবে জমি ভাগবন্টন করে দিয়েছেন। আমার বাবা একজন হাজী, অনেকদিন ধরে অসুস্থ, এরপর যদি আমরা মা বাবাকে ভাত কাপড় না দিয়ে উল্টো মারধর করি, এটা অমানবিক কিন্তু আমার বড় ভাই মা বাবাকে মারধর করে এবং কেউ প্রতিবাদ করলে তাকেও মারধর করাসহ হুমকি দেয়। আমি যদি কোনো ভুল করি তারা আমার মারতে পারেন কিন্তু মা বাবাকে
কেন মারবে?। উক্ত ব্যাপারে আশুলিয়া থানা পুলিশ ও র‌্যাব জানায়, কোনো ছেলে যদি তার মা বাবাকে ভাত কাপড় না দিয়ে তাদেরকে মারধর করে, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। উক্ত ব্যাপারে ভুক্তভোগী পরিবার ও সচেতন মহল সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এ বিষয়ে স্থানীয় সাদেক হোসেন ভুঁইয়া মেম্বার বলেন, জয়নাল ও তার মায়ের সাথে অনেক দিন ধরে তাদের পরিবারিক বিবাদ, অনেকবার বিচার করতে গিয়ে আমরা ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসছি, ওদের পরিবারের লোকজন তেমন সুবিধাজনক না বলে তিনি জানান।
সোমবার (২৪ জানুয়ারি ২০২২ইং ) দুপুরে এ বিষয়ে জানতে বিবাদী জয়নাল আবেদীনের মোবাইল ফোনে কল করলে তার স্ত্রী বিবাদী মমতাজ বেগম বলেন, আমাদের পারিবারিক বিষয়, আমার স্বামী জয়নালের মা ছোট ভাইয়ের সাথে বিবাদ সৃষ্টি হয়েছে বলে তিনি স্বীকার করেন। তিনি বলেন, আজ আদালত থেকে জামিনে বের হয়েছেন জয়নাল। মারধর করার বিষয়ে তিনি বলেন, এসব মিথ্যা কথা। উক্ত বিষয়টি রহস্যজনক বলে মনে করেন অনেকেই। পর্ব-১।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *