আই লাভ ইউ বলা কি অপরাধ?

সারাদেশ

হেলাল শেখঃ দুনিয়াতে মানুষ সবাই অর্থ ও স্বার্থের জন্য পাগল। জীবন মানেই গল্পঃ আইলাভ ইউ বলা কি অপরাধ? এক শিশু শিক্ষার্থী তার ম্যাডামকে আই লাভ ইউ বলায় পরের সপ্তাহে পরীক্ষার খাতায় দেখে দশ নাম্বার কম। ম্যাডামকে বলা হলো আমার দশ নাম্বার কম কেন..? ম্যাডাম বললো তোর বেয়াদবির কারণে দশ নাম্বার কাটা হয়েছে, তাহলে কি ভালোবাসাটা অপরাধ?। গল্পটি স্মৃতির পাতা থেকে নেয়া। ভালোবাসা যা পায় তার চেয়ে বেশি হারায়। কোনো মা তার সন্তানের খারাপ চায় না কিন্তু সন্তান বড় হয়ে মাকে আর ভালোবাসে না। অনেক সন্তান মাকে মারধর করে এবং বাড়ি ঘর থেকে বাহিরে ফেলে দেয়।
এক স্কুলের হেডমিস্টেজকে বলা হলো, মেম আমি আপনাকে সেই রকম ভালোবাসি-পরের দিন শিক্ষার্থীকে দেখি টিসি লেটার হাতে ধরিয়ে দিলেন মাষ্টার। স্কুল থেকে বাড়িতে গিয়ে সামনে দেখে বড় ভাই, ভাইকে বলা হলো, ভাই তোমাকে আমি অনেক ভালোবাসি। ভাই-বললো, ছোট ভাই তোমার নতুন শার্ট নেওয়ার ধান্দা তাইতো?। বোনকে পেয়ে বলা হলো, আমি তোমাকে অনেক ভালোবাসি। বোন বললো, তোমার কাপড় চোপড় ধোয়ার সময় হইছে তাই না?।
চাচাতো বোনকে বলা হলো, আমি তোমাকে অনেক ভালোবাসি। চাচাতো বোন বললো, স্কুল থেকে টিসি পাইছোস এখন বাড়ি থেকেও টিসি পাইতে চাস নাকি?। মা রান্না ঘরে রান্না করছেন, তখন মাকে বললাম, মা তোমাকে অনেক ভালোবাসি। মা মুসকি হেসে বললেন, দুষ্টু ছেলে কোথাকার!। এরপর রান্না শেষে মা অনেক খাবার সামনে এনে দিলেন ছেলেকে, আমি বললাম এতো খাবার কার জন্য মা? মা বললেন যে, আমাকে যে ছেলে বলেছে যে, আমি তোমাকে ভালোবাসি মা। আমাকে যে, আই লাভ ইউ বলে ছিলো-তার জন্য এই খাবারগুলো। এই হলো মায়ের মমতাময় ভালোবাসার ভুমিকা। এর পরে অনেক দিন গত হলো, লেখা পড়ার মধ্যদিয়ে অনেক ঘটনা ঘটে গেলো। অনেক কষ্টে ৫টি বছর লেখা পড়া করে (বিএ পাস) করার পর ছোট একটি চাকরি করছে ছেলেটি। ৫বছর পর বাড়িতে ফিরে দেখেন, বাবা তার ভুল বুঝতে পারছেন। মা তার ছেলের জন্য কেঁদে কেঁধে প্রায় অন্ধ পাগলির মতো হয়েছেন, ছেলেকে কাছে পেয়ে এবং ওই ছেলের ভালোবাসা পেয়ে প্রিয় মা বাবা সুখ শান্তি পাচ্ছেন।
ভাবছি এবার মাকে আমার মনের কথা বলবো, ভাবছি স্ত্রী সন্তানকে বলবো আই লাভ ইউ, মায়ের কাছেও কিছু টাকা আছে জানি। হঠাৎ দুষ্টুামি করে মাকে বললাম আমাকে কিছু টাকা দিবে মা? মা নানারকম অজুহাতে টাকা দিতে পারবে না বলেছেন। এর কারণ হলো, মা এখনও বাবার কথায় উঠে বসেন। মায়ের সাথে অন্য কারো তুলনা হয়না, মা তার ছেলের মঙ্গল কামনায় আজও নিরবে কাঁদে। ওই শিশু ছেলেটি বড় হয়েছেন। পরিবার, সমাজ, দেশ ও জাতির কাছে একজন সৈনিক। তবে স্ত্রী সন্তান নিয়ে জীবন যুদ্ধে আহত এখন সেই সৈনিক। যাদের জীবনে এমন ঘটনা ঘটেছে তাদের দুঃখ কষ্ট দেওয়ার জন্য এই লেখাগুলো প্রকাশ করছি না, যারা মাকে ভালোবাসেন তাদের প্রতি সম্মান জানাচ্ছি, এই লেখা তাদেও জন্য প্রীতি উপহার। আমার অনুরোধ রইল মা বাবা যেমনই হোক তাদেরকে কেউ কষ্ট দিবেন না। আই লাভ ইউ মা-আমি অনেক ভালোবাসি মা তোমাকে। মা তোমাকে অনেক মনে হয়। মা গো তুমি আছো বহুদূর, তুমি অনেক কষ্ট করে তোমার সন্তানকে জন্ম দিয়ে মানুষ হিসেবে পৃথিবীর মুখ দেখিয়েছো, ধন্যবাদ পৃথিবীর সকল মাকে, আই লাভ ইউ মা-আমি তোমাকে অনেক বেশি ভালোবাসি মা। সেই সাথে একজন মানুষ হিসেবে পৃথিবীর সকল মানব জাতিকে ভালোবাসি। প্রিয় পাঠক আপনারাও মানুষকে ভালোবাসেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *