দেশ থেকে অগণিত অর্থ চলে যাচ্ছে বিদেশে বাড়ছে স্বাস্থ্য সমস্যা।

জাতীয়

মোঃ আবুল কাশেমঃ

স্বাস্থ্যবিজ্ঞান থেকে বলা হয়েছে খেলাধুলা মানুষের শরীর স্বাস্থ্য ভালো রাখে এবং বুদ্ধির বিকাশ ঘটায়। আজ দেখা যায় সেই খেলা আর নেই এসেছে অন্য ধরনের খেলা যে খেলায় মানুষের জন্য স্বাস্থ্য সমস্যার মূল কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। একবার লক্ষ করে দেখুন  কিশোর-কিশোরী বৃদ্ধ পর্যন্ত এই খেলায় মেতে উঠেছে। প্রযুক্তির খেলায় ব্যয় হচ্ছে অর্থ, নষ্ট হচ্ছে চোখের দৃষ্টি ,নষ্ট হচ্ছে ব্রেইনের ,নষ্ট হচ্ছে স্বাস্থ্য। মানুষ দিন দিন এই খেলাতে তথ্য যুগে এসে প্রতিবন্ধীর রূপ নিচ্ছে ধীরে ধীরে। আপনি যদি একবার ভেবে দেখুন মানুষ এই মোবাইলে বিভিন্ন অ্যাপস ও গেম খেলার পিছনে কত সময় ব্যয় করছে এবং মানুষ অ্যাপস ও গেমসের প্রতি আকৃষ্ট হওয়ায় অর্থ ব্যয় হচ্ছে চোখের দৃষ্টির শক্তি হারিয়ে যাচ্ছে এবং অন্যান্য শারীরিক সমস্যা তৈরি হচ্ছে।
মোবাইল ছোট্ট একটি ডিভাইস হাওয়ায় সকল বয়সের মানুষের দৃষ্টিশক্তি সমস্যা হচ্ছে।
আমাদের বাচ্চাদের ব্রেইনের ৯৫% গঠন হয় প্রথম ৫ বছরে। বাকি ৫% গঠন হয় পরের ৩ বছরে। তাই প্রথম ৮ বছর আপনার সন্তানের জন্য – সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সময়। এর ভিতর ৫ বছর বেশি গুরুত্বপূর্ণ! এক কথায় বলা যায় মোবাইল মানে বাচ্চাদের স্বাস্থ্য ও জীবনের ঝুঁকি বহন করে।

৭ জুলাই ২০২২‘গলায় ফাঁস নেয়ার টিকটক’ বানাতে গিয়ে কিশোরীর মৃত্যু। নোয়াখালীর চাটখিলে টিকটক ভিডিও ধারণ করার সময় অসাবধানতাবশত গলায় ফাঁস লেগে সানজিদা আক্তার (১১) নামে এক কিশোরীর মৃত্যু হয়েছে।

লাইকি, টিক টক, ইমো, লুডু এ ধরনের সকল অ্যাপস এর মধ্যে গোল্ড কয়েন অথবা ডায়মন্ড সহ বিভিন্ন ধরনের গাড়ি উপহার প্রোগ্রাম থাকে এগুলো কিনতে হলে আপনাকে ডলারের মাধ্যমে ক্রয় করতে হয়। এই অর্থ গুলি সম্পূর্ণ বাহির দেশে চলে যাচ্ছে । কেউ আমরা একবারও চিন্তা করি না এটি বাংলাদেশের জন্য কত ক্ষতিকর। দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা দুর্বল হওয়ার অনেকটা কারণ বহন করে বলে মনে করছেন সচেতন মহল। এখানে দেখা যায় এই উপহার গুলি কিনতে চান তাও শুধুমাত্র একটি পিকচার। এই অ্যাপস কোম্পানি গুলো শুধু পিকচার বিক্রি করে প্রতিদিন  কোটি কোটি টাকা অর্থ নিয়ে যাচ্ছেন বিদেশে।

এই অ্যাপসে বা গেমস এ সবচেয়ে বেশি ডুবে থাকছে শিশু , কিশোর এবং যুবক। বলা হয় আজকের দিনের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। এই ভবিষ্যৎ কে রক্ষা করতে হলে এসব অ্যাপস গুলো বন্ধ করা অতি জরুরী। তা না হলে আমাদের দেশে অতি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে আগামী ভবিষ্যৎ তা ধীরে ধীরে নষ্ট হয়ে যাবে। দেশ চরম অর্থ সংকটের সম্মুখীন হতে পারে। বন্ধ করার জন্য সরকারের দৃষ্টি দেওয়া অতি প্রয়োজন বলে মনে করছেন সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গরা। পর্ব ১।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *